মেনু নির্বাচন করুন

খালাশপীর জামে মসজিদ

খালাশপীর জামে মসজিদ

কিভাবে যাওয়া যায়:

খালাশপীর মসজিদঃ উল্লেখিত মসজিদটি পীরগঞ্জ থানা/ উপজেলা সদর থেকে ১১ কিঃ মি পশ্চিমে ৫নং মদনখালি ইউনিয়নের খালাশপীর হাটে ঠাকুর দাস লক্ষ্মিপুর মৌজায় অবস্থিত। মসজিদটি তিনটি গম্বণৎ বিশিষ্ট। উহার দৈর্ঘ্য ৬০ ফুট প্রস্থ ২০ ফুট। ৫০ ইঞ্চি পুরো গাথুনী এবং ইরাণী নক্শা খঁচিত ছিল। বর্তমানে উহা সংষ্কার করা হয়েছে। ইহার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস এরুপ যে, ১৪২৪-১৫৩০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এ অঞ্চলে ঠাকুর বংশের লোকজন রাজত্ব করতেন। তাদের অনুমতি ছাড়া কেহ কোন প্রকার উন্নয়ন মূলক কাজ করতে পারতো না। পারতো না বিয়ে-সাদী বা কোন আচার-অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে। সে সময় এ এলাকায় আগত ইসলাম ধর্ম প্রচারক পীর-দরবেশগণ এ অঞ্চলে ইসলাম প্রচার করতঃ লোকজনকে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করেন। দলে দলে লোক মুসলমান ধর্ম গ্রহণ করতঃ ঠাকুর পরিবারের অত্যাচার থেকে খালাশ প্রাপ্ত হন। সেই থেকে এ স্থানের নামকরণ করা হয় খালাশপীর। ১৫২০-১৫৭০ খ্রিস্টাব্দ পীরগঞ্জে ইসলাম প্রচারের জন্য একটি প্রচারক দল আসেন। তাঁরা প্রথমতঃ মঞ্জিলার দরগায় একটি নমুনা মসজিদ তৈরী করেন। খালাশপীর, বোয়ালমারি, কুমেদপুর, হাতিবান্ধা, মাদারঞ্জ, বড় ফলিয়া মসজিদ গুলো তাদেরই নির্মিত বলে জানা যায়। ১৫৪০-১৫৫০ খিস্টাব্দে সুলতান নাসির উদ্দিন নুশরত শাহের লা- খেরাজ সম্পত্তির রাজস্ব অনুদানে উল্লেখিত পীর সাহেবগণ উক্ত মসজিদ গুলো তৈরি করেন। পরবর্তীতে সম্রাট শেরশাহ্ ভারত উপমহাদেশে ইসলাম ধর্ম প্রচার কার্যে পীর সাহেবদের সহযোগিতা করেন বলে ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায়।


Share with :

Facebook Twitter